July 16, 2024
Picture: Indian Railway, Rail Track, Platform.

Picture: Indian Railway, Rail Track, Platform.

শেয়ার করুন

নিত্যযাত্রীদের মধ্যে ‘‘অমৃত ভারত প্রকল্পে’’ নদীয়ার প্রাণকেন্দ্র রানাঘাট রেল স্টেশনের নাম না থাকায় অনেকদিন ধরেই অসন্তোষ দানা বাধছিল। বিভিন্ন সংগঠনের তরফে এ বিষয়ে পূর্ব রেলের কাছে স্মারকলিপিও জমা দেওয়া হয়। সেই সময় অবশ্য পূর্ব রেল কর্তৃপক্ষের তরফে আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল যে, আগামী দিনে খোল নলচে পুরো বদলে ফেলা হবে শিয়ালদহ ডিভিশনের এই দ্বিতীয় বৃহত্তম রেল স্টেশন রানাঘাটের। এবারে সম্ভবত সেই কাজ শুরু হতে চলেছে।

রেলের তরফে প্রকাশিত অতি সাম্প্রতিক নথি বলছে খুব শীঘ্রই রানাঘাট স্টেশনের আধুনিকীকরণের কাজ শুরু হবে। রেল সূত্রের খবর, রানাঘাট স্টেশনকে আধুনিকীকরণের কাজে প্রায় 100 কোটি টাকার প্রকল্প বরাদ্দ হয়েছে। তারমধ্যে প্রথম পর্বে কাজ হবে প্রায় 30 কোটি টাকার। সেই উদ্দেশ্যেই পূর্ব রেলের তরফে ৩০ কোটি টাকার প্রকল্প ব্যয়ের দরপত্র ডাকা হয়েছে।

‘‘অমৃত ভারত প্রকল্পে’’ নদীয়ার কৃষ্ণনগর, শান্তিপুর, গেদে ও কল্যাণী স্টেশনের নাম থাকলেও সেখানে রানাঘাট স্টেশনের নাম ছিল না। আর এই কারণেই রেল যাত্রীদের মধ্যে অসন্তোষের বহিঃপ্রকাশ দেখা গিয়েছিল। এবারের রেল নতুন করে রানাঘাটের জন্য অর্থ বরাদ্দ করায় স্বাভাবিকভাবেই সকলেই খুশি। পূর্ব রেলের শিয়ালদহ ডিভিশনের একটি বৃহত্তম ও গুরুত্বপূর্ণ রেলস্টেশন হলো রানাঘাট।

[আরো পড়ুন:👉 এই 7 মিউচুয়াল ফান্ড 10 বছরে 32 লক্ষ টাকা রিটার্ন দিয়েছে। বিনিয়োগ করুন আজই।]

অথচ এখানে নেই আধুনিক মানের যাত্রী প্রতীক্ষালয় কিংবা অনুসন্ধান কেন্দ্রের মতো ন্যূনতম পরিষেবা। অথচ রেলের প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী এই রানাঘাট স্টেশন থেকে বছরে রেলের আয় হয় প্রায় 14 কোটি টাকা। দুই সীমান্তবর্তী স্টেশন বনগাঁ ও গেদের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ যোগাযোগের মাধ্যম হল রানাঘাট। মাস কয়েক আগে শিয়ালদহ থেকে কল্যাণী পর্যন্ত তৃতীয় লাইন যুক্ত করা হয়েছিল এইবারে কল্যাণীর সঙ্গে রানাঘাটকেও তৃতীয় লাইনের মাধ্যমে যুক্ত করা হবে।

সূত্রের খবর এতে লোকাল ট্রেনের কারণে হওয়া এক্সপ্রেস ট্রেনের ধীরগতির সমস্যা এড়ানো যাবে। রেলের তরফে প্রকাশিত দরপত্র অনুযায়ী রানাঘাট স্টেশনের প্ল্যাটফর্মগুলি সম্প্রসারণ করা হবে, স্থানান্তর করে নতুন রূপে জিআরপি অফিস ও ফুট ওভার ব্রিজ নির্মাণ করা হবে।

শুধু তাই নয় রেল স্টেশনকে কেন্দ্র করে নতুন G+3 ভবন তৈরি হবে। সেখানে থাকবে আধুনিকমানের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত যাত্রী প্রতীক্ষালয়। নতুন শুল্ক দফতরের অফিস ও ইমিগ্রেশন সেন্টারও এই প্রকল্পের মধ্যেই নির্মাণ করা হবে।

রেল সূত্রের খবর আগামী দু বছরের মধ্যেই এই প্রকল্পের কাজ শেষ করা হবে। বিষয়টি নিয়ে পূর্ব রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক কৌশিক মিত্র জানান ‘‘যাত্রীপরিষেবা উন্নতির লক্ষ্যেই এই প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। ধাপে ধাপে এই কাজ শেষ করা হবে।’’

[আরো পড়ুন:👉 বিনিয়োগ করুন ELSS মিউচুয়াল ফান্ডে। আকর্ষণীয় রিটার্নের সঙ্গে পান কর ছাড়ের সুবিধাও।]

শেয়ার করুন

1 thought on “বহুদিনের দাবি মেনে এই স্টেশনের আধুনিকীকরণে রেল বরাদ্দ করল ১০০ কোটি টাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *